Five Poems by Imtiaz Mahmud – translated by Alamgir Mohammad

1.
“Dream” 

Mother with far fewer
things
Dreams that
I can’t but be surprised.
She sees green field and green grass.
In the grass there roam eleven ducks.
After this there is seen a sawmill.
While crossing it the ducks get sawed in their necks,
Mother starts calling the ducks by name.
Mother keeps calling my name.
Running after her voice I ran into the dream.
With far fewer things
she dreams.
She sees green field — I have come in the middle of that field.
Green grass– I got stuck under that grass. Mother calls my name,
I cannot come out
I cannot come out anymore
In my chest there runs the neck- sawed ducks.

স্বপ্ন

মা এত কম উপকরণ নিয়ে স্বপ্ন দেখেন
যে অবাক হতে হয়
তিনি দেখেন
সবুজ মাঠ
আর
সবুজ ঘাস
ঘাসের মধ্যে দৌড়ে বেড়ায় এগারটা হাঁস
এরপর
দেখা
যায়
একটা করাতকল
যেটা পার হতে গিয়ে হাঁসগুলোর
গলা কাটা পড়ে
মা হাঁসগুলোর নাম ধরে
ডাকা শুরু
করেন
মা আমার নাম ধরে ডাকতে থাকেন
আমি তার কণ্ঠের পেছনে
দৌড়াতে দৌড়াতে
স্বপ্নের মধ্যে ঢুকে পড়ি
এত কম উপকরণ নিয়ে তিনি স্বপ্ন দেখেন
তিনি দেখেন
সবুজ মাঠ
আমি সেই মাঠের মধ্যে চলে এসেছি
সবুজ ঘাস
আমি ঘাসের নিচে আটকা পড়েছি
মা আমার নাম ধরে ডাকেন
আমি বের হতে পারি না
আমি আর বের হতে পারি না
বুকের
মধ্যে
দৌড়ে
বেড়ায়
গলাকাটা হাঁস!

 

2.
“Rose”

Five flowers are there in a tree
One of them goes to hospital to attend to a patient,
One of them goes to jail to release a leader,
One goes to a bridal chamber, another with a corpse
The fifth one is hanging on the branch,
Still unsold.

গোলাপ

একটা গাছে পাঁচটা গোলাপ ফুটেছে
তাদের একজন হাসপাতালে রোগী দেখতে যায়,
একজন জেলখানায় নেতাকে ছাড়িয়ে আনতে, একজন
বাসর ঘরে যায়, আর একজন মরদেহের সাথে,
পাঁচ নম্বর গোলাপটা ডালে ঝুলে আছে,
এখনো বিক্রি হয়নি।
.

3.
“Suicide “

I fell asleep on a stone.
I couldn’t sleep for ages.
That’s why I slept on a stone.
And before sleeping
I ate the stone like an olive. The shells of the stone were floating in the river.
The tide was so high. The wave was severe. I ate the river along with the tide and the wave. On both banks of the river
there was a standing march of some trees lined like boys. All the leaves were so green. And on the branches there were some yellow birds. I ate the trees along with the leaves and the birds. I floated on a city made of waves. There was a game running on in the gorgeous Stadium. In the field
there were twenty-two players, the gallery was full of supporters. I
ate the stadium along with the players and supporters. In the end of the city
there was a library standing upright like an old Brahmin. The library shelves were decorated with Tagore, Einstein, Marx and Darwin….
I ate the library along with Tagore, Einstein, Marx and Darwin.
After this I ate all the airplanes from the airport, Parliament House and Office of UN. Groves and mountains.  Continents and seas. It means I ate all the world. All the seven skies with stars, galaxies and….. The whole universe. After this, slowly I reached God.
I couldn’t sleep for many years. So my eyes
were full of drowsiness.
Before I said anything God asked me, are you repentant?
I was exhausted. It seemed he asked me,
Is the world repentant? I was looking for a stone to sleep on.
God again asked me, Are you repentant?
Again I heard, is the world repentant?
I couldn’t sleep for ages. Leaving all the tiredness I shouted before the Almighty,
The Earth is a swine.

আত্মহত্যা
আমি একটি পাথরের উপর ঘুমিয়ে পড়েছিলাম। বহুকাল আমার ঘুম হয়নি।
আমি তাই একটি পাথরের উপর ঘুমিয়ে পড়লাম। আর ঘুমানোর আগে আমি
পাথরটাকে একটা জলপাইর মতো করে… জলপাইর মতো করে আমি
পাথরটাকে খেয়ে ফেললাম। পাথরের খোসাগুলো নদীতে ভেসে যাচ্ছিলো।
নদীতে ভীষণ স্রোত । নদীতে তুমুল ঢেউ। আমি স্রোত ও ঢেউসহ নদীটি খেয়ে
ফেললাম। নদীর দুই তীরে কুচকাওয়াজে দাঁড়ানো বালকদের মতন সারি বেঁধে
দাঁড়িয়ে ছিলো কতগুলো গাছ। গাছগুলোর সব পাতা সবুজ। আর তার ডালে
ডালে হলুদ রঙের পাখি। আমি হলুদ পাখিসহ গাছগুলো সবুজ পাতাসহ
গাছগুলো খেয়ে ফেললাম।
.
আমি ভেসে উঠলাম নদীর ঢেউয়ে ঢেউয়ে তৈরি হওয়া এক নগরীতে।
সেখানকার সবচেয়ে জমকালো স্টেডিয়ামে খেলা হচ্ছিলো। মাঠে ১১ দু’গুণে
২২ জন খেলোয়াড়, গ্যালারি ভর্তি দর্শক। আমি খেলোয়াড় ও দর্শকসহ
স্টেডিয়ামটি খেয়ে ফেললাম। নগরের এক প্রান্তে প্রাচীন ঋষিদের মতন ঠায়
দাঁড়িয়ে ছিলো একটি গ্রন্থাগার। গ্রন্থাগারের তাকে তাকে সাজানো রবীন্দ্রনাথ,
আইনস্টাইন, মার্কস, ডারউইন…।  আমি রবীন্দ্রনাথ ও আইনস্টাইনসহ
আমি মার্কস ও ডারউইনসহ গ্রন্থাগারটি খেয়ে ফেললাম।
.
এরপর আমি খেয়ে ফেললাম বিমানবন্দরের সবগুলো বিমান, সংসদ ভবন আর
জাতিসংঘ কার্যালয়। অরণ্য ও পর্বতমালা। মহাদেশ ও সাগরসমূহ। অর্থাৎ আমি
খেয়ে ফেললাম গোটা পৃথিবী। আর খেয়ে ফেললাম গ্রহ নক্ষত্র উল্কা আর
ধুমকেতুসহ সাত সাতটা আকাশ। হাত পা চোখ মাথাসহ গোটা শূন্য আর
মহাশূন্য।এরপর ধীরে ধীরে আমি ধীরে ধীরে পৌঁছে গেলাম ঈশ্বরের দরবারে।
বহুকাল আমার ঘুম হয়নি। ঘুমে তাই আমার দু’চোখ কাতর হয়ে পড়েছিলো।
আমি কিছু বলার আগেই ঈশ্বর আমাকে জিজ্ঞেস করলেন, তুমি কি অনুতপ্ত?
ক্লান্তিতে আমার শরীর ভেঙে পড়ছিলো। আমার কাছে মনে হলো তিনি যেন
আমাকে প্রশ্ন করেছেন পৃথিবী কি অনুতপ্ত? আমি ঘুমানোর জন্য একটি পাথর
খুঁজছিলাম। ঈশ্বর আমাকে পুনরায় জিজ্ঞেস করলেন তুমি কি অনুতপ্ত? আমি
আবার শুনতে পেলাম ঈশ্বর আমার কাছে জানতে চেয়েছেন পৃথিবী কি অনুতপ্ত?
বহুকাল আমি ঘুমাতে পারিনি। আমার সব ক্লান্তি ঝেড়ে ফেলে আমার ঘুমহীনতার
সব ক্লান্তি ঝেড়ে ফেলে পরম করুণাময় ঈশ্বরের সামনে আমি চেঁচিয়ে বলে উঠলাম,
পৃথিবী একটা শুয়োরের বাচ্চা!

 

4.
“Captive”

While being digested in the belly of fishes it comes to my mind, Without permission
Not for leaving the country,  To flee keeping the countrymen in darkness Allah
Punished Prophet Yunus. I realize immediately
for what guilt
I have become food for the fishes. There creates a kind of repentance in me
its temperature is hotter than the stomach of the fish. I
keep melting.
And right then a voice of the unseen is heard. The voice of the unseen says to me,
The supplication the prophet of the Muslims uttered — You
Know it? I said, I know. He said, You
Will get freed if you can read this supplication once.
I have started melting at much heat. Yet
I cannot understand … what shall I do?  If I get freed from the belly of the fish, the crocodile
will devour me… I do not know the supplication of coming out from the belly of crocodiles.

বন্দী

মাছের পেটের ভেতর হজম হতে হতে আমার মনে হয়, অনুমতি ছাড়া
দেশত্যাগের জন্য নয়, স্বজাতিকে অন্ধকারে রেখে পালাবার জন্যই খোদা
ইউনুস নবীকে শাস্তি দিয়েছিলেন। আমি সহসা বুঝে উঠি কোন অপরাধে
আমি মাছের খাদ্য হয়েছি। আমার মধ্যে এক ধরনের অনুশোচনা তৈরি
হয়—যার উত্তাপ মাছের পাকস্থলীর চেয়ে বেশি। আমি গলতে থাকি।
আর ঠিক তখন গায়েবি আওয়াজ হয়। গায়েবি স্বর আমাকে বলেন,
মুসলের নবী যে দোয়া এক লক্ষ চব্বিশ হাজার বার পড়েছিলেন—তুমি
কি সেটা জানো? আমি বলি, জানি। তিনি বলেন, তুমি ঐ দোয়াটা একবার
পড়লেই মুক্তি পাবে। আমি অনেক প্রদাহে গলে যেতে শুরু করেছি। তবু বুঝে উঠি না—কী করবো! মাছের পেট থেকে মুক্তি পেলে কুমির আমাকে
খেয়ে ফেলবে। —আমি কুমিরের পেট থেকে বের হবার দোয়া জানি না।
.
5.
“Town”

Boy, who has not heard about the town of the soul!
Of afterlife
that it is situated in the east of the last road, that’s also
known to many.
In the sky of this town the dead boys run their kite and
like birds
keep sitting on the branches of trees. Those who know not swimming,
the angels
teach them to swim. It’s heard
in the pond of the earth
the boy who was drowned and died, In the
afterlife he has become the best
Swimmer.

শহর

বালক আত্মার শহরের কথা কে শোনে নাই! পরকালের
শেষ সড়কের পুব পাশে যে এর অবস্থান, তাও অনেকে জানে।
এ শহরের আকাশে মৃত বালকেরা ঘুড়ি ওড়ায় আর পাখির মতন
গাছের ডালে বসে থাকে। যারা সাঁতার জানে না, ফেরেশতারা
তাদের সাঁতার শেখায়। শোনা গেলো, পৃথিবীর পুকুরে ডুবে
যে ছেলেটা মরে গেছে, পরকালে সে শ্রেষ্ঠ সাঁতারু হয়েছে।

These poems are originally written in Bengali by Imtiaz Mahmud.  Imtiaz Mahmud is a widely read contemporary Bangla writer who was born in 1980. He has eight published books of poetry.

FB_IMG_1598797291403

 

 

Alamgir Mohammad  is an academic and translator. He teaches at the Department of English Language and Literature in Premier University Chattogram, Bangladesh. His translated works include ‘Pordeshi Eksho Kobita’, ‘ Selected Letters of Kazi Nazrul Islam’, ‘ The Great Prophet Muhammed (Sm) by Al Mahmud and ‘ Letters of  Begum Rokeya ‘ and ‘Mother- in- law and other Stories’.

 

PIC

 

2 Comments

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s